উচ্চারণ স্থান এবং চারপ্রকার উচ্চারণরীতি অনুযায়ী ৭টি বাংলা। মৌলিক স্বরধ্বনি (অ, আ, অ্যা, ই, উ, এ, ও)-র উদাহরণ বৈশিষ্ট্যগুলি শব্দগত উদাহরণ সহযােগে নিম্নে বর্ণিত হচ্ছে –


– উচ্চ, সম্মুখ, প্রসৃত, সংবৃত, তালব্য: ইচ্ছা, নিয়তি, ইমন।

– উচ্চ, পশ্চাৎ, বর্তুল, সংবৃত, কণ্ঠ: উচ্চ, বুধ, ভীমরুল।

– উচ্চমধ্য, সম্মুখ, প্রসৃত, অর্ধসংবৃত, তালব্য: এমনি, যে, কনে।

– উচ্চমধ্য, পশ্চাৎ, বর্তুল, অর্ধসংবৃত, কণ্ঠ: অতি, তরু, বন।

অ্যা – নিম্নমধ্য, সম্মুখ, প্রসৃত, অর্ধবিবৃত, তালব্য: অ্যাসিড, ব্যবহার, এখন।

– নিম্নমধ্য, পশ্চাৎ, বর্তুল, অর্ধবিবৃত, তালব্য: অনৈক্য, কত, অল্প।

– নিম্ন, কেন্দ্রীয়, মধ্যস্থ, বিবৃত, ক্য; আমি, বাম, দেনা।


৭টি বাংলা স্বরধ্বনির মধ্যে কেবলমাত্র ‘অ’ ধ্বনি শব্দের অন্ডে কখনােই উচ্চারিত হয় না। বাকি ৬টি স্বরধ্বনি শব্দের আদ্য, মধ্য ও অন্ত অবস্থানে উচ্চারিত হয়।


জোড়কলম শব্দ সম্পর্কে আলােচনা করাে। 

সমাস বলতে কী বােঝ? উদাহরণসহ বুঝিয়ে দাও। সমাসবদ্ধ পদের গঠনবৈশিষ্ট্য অনুযায়ী সমাসের ভাগগুলি উদাহরণসহ উল্লেখ করাে। 

মুণ্ডমাল শব্দ কাকে বলে? উদাহরণ দিয়ে বুঝিয়ে দাও। 

ক্লিপিংস ও ক্র্যানবেরি রূপমূল কাকে বলে তা উদাহরণ-সহ আলােচনা করাে। 

রূপ এবং দল-এর সাদৃশ্য এবং বৈসাদৃশ্য আলােচনা করাে। 

রূপমূল কাকে বলে? উদাহরণসহ স্বাধীন ও পরাধীন রূপমূলের পরিচয় দাও। মুক্ত ও বদ্ধ রূপমূলের পরিচয় উদাহরণসহ দাও। 

রূপতত্ত্বের সংজ্ঞা দিয়ে তার আলােচনার বিষয়টি স্পষ্ট করাে। 

রূপমূল বা রূপিমের প্রধান চারটি শ্রেণিভেদের সংক্ষিপ্ত আলােচনা করাে। 

সহ রূপমূল বা Allomorph সম্বন্ধে যা জান সংক্ষেপে লেখাে। 

সহরূপমূলের রূপভেদ হিসেবে শূন্য রূপমূলের ভূমিকা নির্দিষ্ট করাে। 

বাক্যে ব্যবহৃত শব্দের রূপবৈচিত্র্য সম্পর্কে আলােকপাত করাে। 

প্রত্যয় কাকে বলে? ব্যাবহারিক প্রয়ােগের অবস্থান অনুযায়ী প্রত্যয়ের কটি ভাগ ও কী কী? প্রত্যেক ভাগের একটি করে উদাহরণ দাও। 

Rate this post